শেরপুর প্রতিদিন ডট কম

Home আন্তর্জাতিক বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা নিয়ে কোনো চুক্তি নয়, মোদিকে মমতার চিঠি
বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা নিয়ে কোনো চুক্তি নয়, মোদিকে মমতার চিঠি
Sreerampur: West Bengal Chief Minister and TMC chief Mamata Banerjee addresses a public rally ahead of the 2019 Lok Sabha elections, at Sreerampur in West Bengal's Hooghly on April 24, 2019. (Photo: IANS) CREATOR: gd-jpeg v1.0 (using IJG JPEG v62), quality = 100

বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা নিয়ে কোনো চুক্তি নয়, মোদিকে মমতার চিঠি

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, তার রাজ্যের অংশগ্রহণ ছাড়া তিস্তা ও গঙ্গার পানি বণ্টন নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের কোনো আলোচনা করা উচিত হবে না।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে লেখা এক চিঠিতে তিনি এ কথা বলেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের নরেন্দ্র মোদির নয়াদিল্লিতে আলোচনার দুদিন পরই মমতা এই চিঠি দেন।
চিঠিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি ভাগাভাগি করা সম্ভব নয়। কারণ পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলের মানুষের সেচ ও খাওয়ার জন্য পানির প্রয়োজন হয়।
পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বলেন, তিস্তায় পানির প্রবাহ বছরের পর বছর ধরে কমে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, বাংলাদেশের সঙ্গে পানি ভাগাভাগি করা হলে উত্তরবঙ্গের লাখ লাখ মানুষ সেচের পানির অপর্যাপ্ততার কারণে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।
তিনি বলেন, পানি অত্যন্ত মূল্যবান। প্রাণ ধারণের রসদ নিয়ে কোনো সমঝোতা করতে আমরা প্রস্তুত নই।
মোদীকে পাঠানো চিঠিতে মমতা আরও লিখেছেন, পশ্চিমবঙ্গের জনজীবনে গঙ্গার পানির গুরুত্বের পাশাপাশি ফরাক্কা থেকে পাওয়া পানি কলকাতা বন্দরের নাব্যতা বজায় রাখার ক্ষেত্রেও বড় ভরসা। তা না হলে গঙ্গায় পলি পড়ে কলকাতা বন্দর জাহাজ চলাচলের উপযোগী নাব্যতা হারাতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে গত ২১-২২ জুন নয়া দিল্লিতে রাষ্ট্রীয় সফর করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। টানা তৃতীয় মেয়াদে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) সরকার গঠনের পর নয়া দিল্লিতে এটিই কোনো সরকারপ্রধানের প্রথম দ্বিপক্ষীয় সফর। সফরে নয়াদিল্লিতে গঙ্গার পানিবণ্টন চুক্তি নবায়নসহ ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ১০টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।
এই সফরে আলোচনার পর ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করেন, বাংলাদেশে তিস্তার পানি সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার জন্য শিগগির একটি কারিগরি দল বাংলাদেশে পাঠানো হবে এবং ২০২৬ সালে মেয়াদ শেষ হতে যাওয়া ১৯৯৬ সালের গঙ্গার পানি বণ্টন চুক্তির নবায়নের বিষয়ে আলোচনা শুরু হবে।
এরপরই তিস্তা ও গঙ্গার পানি বণ্টন নিয়ে নিজের আপত্তি জানিয়ে চিঠি দিলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।
প্রসঙ্গত, ১৯৮৩ সালে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে একটি অস্থায়ী চুক্তি হয়। ২০১১ সালে আরেকটি তিস্তা চুক্তির খসড়া তৈরি করে দুই দেশ, যেখানে শুকনো মওসুমে ভারতের ৩৭.৫ শতাংশ এবং বাংলাদেশের ৪২.৫ শতাংশ পানি পাওয়ার কথা হয়। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই চুক্তির বিরোধিতা করেন তার রাজ্যের স্বার্থহানির যুক্তি দেখিয়ে। যেহেতু ভারতের সংবিধান অনুযায়ী পানির ওপর রাজ্যের অধিকার স্বীকৃত, তাই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর আপত্তি উপেক্ষা করে তিস্তা চুক্তি করা কার্যত সম্ভব নয় ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষে।


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

seventeen − 14 =