শেরপুর প্রতিদিন ডট কম

Home জাতীয় ঈদযাত্রায় মহাসড়কে সমন্বিত নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে: হাইওয়ে পুলিশপ্রধান
ঈদযাত্রায় মহাসড়কে সমন্বিত নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে: হাইওয়ে পুলিশপ্রধান

ঈদযাত্রায় মহাসড়কে সমন্বিত নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে: হাইওয়ে পুলিশপ্রধান

হাইওয়ে পুলিশপ্রধান মো. শাহাবুদ্দিন খান বলেছেন, ঈদে ঘরমুখো মানুষের ঈদযাত্রাকে নির্বিঘ্ন করতে দেশের সকল মহাসড়কে পুলিশের সমন্বিত নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। জেলা পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশসহ পুলিশের সকল ইউনিট কাজ করছে। ঈদে মানুষের বাড়ি ফেরাকে আনন্দময় করতে আমরা সবাই মাঠে আছি। ঈদের ছুটি শেষ হওয়া পর্যন্ত এটা অব্যাহত থাকবে। বিগত বছরের চেয়ে এবারের ঈদযাত্রা আরও নিরাপদ হচ্ছে, সামনের দিনগুলোতেও থাকবে।
রোববার (৭ এপ্রিল) দুপুরে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক পরিদর্শনে এসে কুমিল্লার আলেখারচর এলাকায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরও বলেন, ঈদের আগে থেকে আমরা দেশের সকল মহাসড়কে যানজটসহ সকল সমস্যার কারণগুলো চিহ্নিত করেছি। এখন সেগুলো মাথায় রেখে কাজ করছি। আপনারা জেনে থাকবেন, কয়েক দিন আগে সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় মহাসড়কের পাশের অবৈধ স্থাপনা এবং হাটবাজার উচ্ছেদ করা হয়েছে।
হাইওয়ে পুলিশপ্রধান বলেন, ঈদসহ বিভিন্ন ধর্মীয় উৎসবে মানুষের যাতায়াত সহজতর করতে সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়ে থাকে। আমরা সে অনুযায়ী মহাসড়কগুলোতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছি।
তিনি আরও বলেন, আজ ঈদযাত্রার তৃতীয় দিন চলছে। এ পর্যন্ত দেশের মহাসড়কগুলোতে বড় কোনো যানজটের দৃশ্য চোখে পড়েনি। সব জায়গায় গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। কোথাও কোনো অপ্রীতিকর কিছু ঘটেনি। তবে আজ বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে এবং গাড়ির চাপ আরও বাড়লে সেক্ষেত্রেও আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে। আমরা আশা করছি একটা স্বাচ্ছন্দ্যময় ঈদযাত্রা নিশ্চিত করতে পারব।
মো. শাহাবুদ্দিন খান বলেন, মহাসড়ক যানজট ও ভোগান্তিমুক্ত রাখতে শুধু পুলিশই নয়, যানবাহনের চালকরাও বড় ভূমিকা রাখেন। এ ছাড়া যাত্রীরাও একটা বড় ভূমিকা রাখেন। তারা যদি তাদের দায়িত্বটা ঠিকভাবে পালন করেন, তারা যদি সচেতন থাকেন, তারা যদি অনিরাপদ ঝুঁকিপূর্ণ যাতায়াতে শামিল না হন তাহলে একটা সমন্বিত নিরাপদ ঈদযাত্রা উপহার দেওয়া সম্ভব হবে।
তিনি আরও বলেন, আরও দুই দিন সামনে রয়েছে। ৮ এবং ৯ তারিখ মানুষ স্বজনদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে যাতায়াত করবেন। আমরা বিশ্বাস করি বিগত দিনগুলোর মতো আগামী দিনগুলোতেও ঈদযাত্রাকে নির্বিঘ্ন করতে পারব।
হাইওয়ে পুলিশপ্রধান বলেন, প্রযুক্তি আমাদের সেবার মান উন্নত করেছে, আমাদের ‌দক্ষতা বৃদ্ধি করেছে। এজন্য এবারও আমরা বডি ওর্ন ক্যামেরা, ড্রোন ক্যামেরা ও সিসি ক্যামেরা ব্যবহার করছি। বিশেষ করে যেখানে যানজটের সম্ভাবনা রয়েছে সেখানে আমাদের ড্রোন থাকবে। ড্রোনের মাধ্যমে আমরা ট্রাফিক নির্দেশনা দেওয়ার চেষ্টা করবো। পুরো ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক এখন সিসি ক্যামেরার আওতায়। আমরা প্রতিনিয়ত মহাসড়ক পর্যবেক্ষণ করছি। বিগত যেকোনো বছরের চেয়ে এবারের ঈদযাত্রা অনেক বেশি নিরাপদ ও স্বাচ্ছন্দ্যময় হবে।
তিনি আরও বলেন, ঈদযাত্রাকে নিরাপদ করতে পুলিশের অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে। তবে, এর পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতাও প্রয়োজন। আবার তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে কোনো পিকআপ বা খোলা ট্রাকে কেউ যাতে না উঠে সেদিকে আমরা লক্ষ্য রাখছি। ঝুঁকিপূর্ণ ঈদযাত্রাকে আমরা কখনই সমর্থন করি না। এ ছাড়া যেকোনো দুর্ঘটনা ঘটলে পুলিশের পেট্রোল টিম দ্রুত ব্যবস্থা নেবে। ঈদের পর রাস্তা ফাঁকা থাকায় যানবাহনের বেশি গতির কারণে দুর্ঘটনা বেড়ে যায়। তাই সেই পরিস্থিতিকেও মোকাবিলা করতে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
এর আগে মহাসড়কে চলাচলকারী যাত্রী ও চালকদের সঙ্গে কথা বলেন হাইওয়ে পুলিশপ্রধান। এ সময় তিনি যাত্রী ও চালকদের ঝুঁকিপূর্ণ ও অনিরাপদ যাত্রা থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করেন। পাশাপাশি নির্ধারিত ভাড়ায় যাত্রী আনা-নেওয়ার পরামর্শও দেন।
এ সময় হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজি (অপারেশনস) মাহফুজুর রহমান, হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজি (পূর্ব) মাহবুবুর রহমান, হাইওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি (কুমিল্লা রিজিয়ন) মো. খাইরুল আলম, কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান, কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শামস তাবরেজ, হাইওয়ে পুলিশ কুমিল্লা রিজিয়নের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শামসুল আলম সরকার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খন্দকার আশফাকুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) নাজমুল হাসানসহ আরও অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ten − eight =