ওবায়দুল কাদের তত ভালো খেলোয়াড় নন

12

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ‘ওবায়দুল কাদের সাহেবকে বলে খেলা বন্ধ করুন। উনি তত ভালো খেলোয়াড় নন। আপনি পদত্যাগ করে তাকে খেলতে দিন। প্রকাশ্যে যদি রাস্তা দিয়ে হেঁটে যেতে পারেন আমি রাজনীতি ছেড়ে দেবো।’

বৃহস্পতিবার (২২ ডিসেম্বর) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এক মানববন্ধনে তিনি এ কথা বলেন।

গয়েশ্বর বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে বলবো রাষ্ট্রপতিকে বলুন সংসদ বিলুপ্ত করতে। বাংলাদেশের মানুষ পাথরের মতো শক্ত আবার কাদার মতো নরম। তারা আপনাকে ক্ষমা করলেও করতে পারে।’

সম্প্রতি গাজীপুর ইউনিয়ন বিএনপির এক নেতাকে ডান্ডাবেড়ি পরা অবস্থায় জানাজায় অংশ নিতে বাধ্য করা প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, এটা কি মানবাধিকার লঙ্ঘন নয়? দেশে-বিদেশে সবাই দেখেছেন। মরার ওপর ডান্ডাবেড়ি পরান। আপনাদের তো মরা মানুষের ওপর নৃত্য করার অভ্যাস আছে। পৈশাচিক মনোবৃত্তির পরিণতি ভয়াবহ।

গত ৭ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে হামলা, নেতাকর্মীদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ওইদিন পুলিশের কারা ডিউটি করেছেন আমরা দু-চারজনকে চিনলেও তাদের তালিকা পুলিশের কাছে আছে।

বাধার পরও ১০ বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল হয়েছে জানিয়ে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, গোয়েন্দা সংস্থা সরকারকে সঠিক তথ্য দেয় না। যে তথ্য দিলে আপনি (প্রধানমন্ত্রী) খুশি হবেন, সেই তথ্য দেয়। গোয়েন্দা সংস্থা সঠিক তথ্য দেবে আপনার পদত্যাগের পর যে সরকার আসবে সেই সরকারের কাছে।

স্বৈরাচার এরশাদ এই সরকারের কাছে শিশু উল্লেখ করে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, এই সরকারকে কী বলবেন স্বৈরাচার, ফ্যাসিবাদ, লুটতরাজ, কোনটা বলবেন?

আন্দোলন করি বা না করি এই সরকারকে যেতে হবে উল্লেখ করে গয়েশ্বর বলেন, এখন আপনারা প্রতিদিন আমাদের কোর্টে নেন। কিন্তু ক্ষমতা থেকে গেলে আপনাদের ২৪ ঘণ্টা কোর্টে থাকতে হবে। আমরা মামলা না করলেও দেশের ১৮ কোটি মানুষ মামলার প্রস্তুতি নেবে।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালামসহ কারাবন্দি নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে জিয়া মঞ্চ এই মানববন্ধনের আয়োজন করে।

আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ফয়জ উল্যাহ ইকবালের সভাপতিত্বে ও সদস্য আবু তালেবের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা আবদুস সালাম আজাদ, মীর সরফত আলী সপু প্রমুখ।