নকলায় পুরোদমে চলছে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের গৃহ নির্মানের কাজ

117

স্টাফ রিপোর্টার: শেরপুরের নকলায় তৃতীয় পর্যায়ে পুরোদমে চলছে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের গৃহ নির্মান কাজ। জাতির জনকের স্বপ্ন বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আশ্রয়ন-২-প্রকল্পের আওতায় এ উপজেলার পাইস্কা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে নির্মিত হচ্ছে ২০ টি ও নকলা ইউনিয়নের ডাকাতিয়াকান্দা এলাকায় আরো ১০টি পাকা ঘর। প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের আওতায় যাদের জমি নেই, ঘর নেই এমন ৩০টি পরিবারের পাবেন এসব ঘর।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমানের সার্বিক তত্ত্বাবধানে দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে এই গৃহনির্মান কাজ। বর্তমানে গৃহ নির্মানের কাজ প্রায় শতকরা ২৫ ভাগ শেষ হয়েছে। প্রতিটি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে সরকারি খাস জমির উপর ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা ব্যয়ে দুই কক্ষ বিশিষ্ট আধা-পাকা ঘর নির্মান করে দেয়া হচ্ছে। প্রতিটি ঘরে থাকবে দু’টি কক্ষ, একটি রান্না ঘর, টয়লেট ও সামনে খোলা বারান্দা। স্থানীয়রাও ঘরের নির্মান কাজ দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, প্রথম পর্যায়ে এ উপজেলায় ৫৮টি পরিবারকে জমিসহ ঘর প্রদান করা হয়েছে। ২য় পর্যায়ে আরো ৪২টি পরিবারকে এসব ঘর প্রদান করা হয়েছে। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এসব নির্মিত ঘরের চাবি, কবুলিয়ত দলিল, নামজারী খতিয়ান, ডিসিআরের কপি এবং ঘর প্রদানের সনদ সমন্বয়ে সজ্জিত ফোল্ডার সুবিধাভোগীদের নিকট হস্তান্তর করেছেন।

 

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় ঘর নির্মান কাজ ও নির্মাণের মান তদারকি করা হচ্ছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) কাউছার আহাম্মেদ, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. জাহাঙ্গীর আলমসহ সংশ্লিষ্ঠ জনপ্রতিনিধিরা সার্বক্ষনিক এসব নির্মাণ কাজ পরিদর্শন ও কাজের মান যাচাই করছেন। নির্দিষ্ট সময়ের আগেই নির্মাণ কাজ শেষ করে নির্দেশনামোতাবেক উপকারভাগীদের কাছে হস্তান্তর করতে পারব। তিনি আরো বলেন, সবগুলো ঘর একই নকশায় নির্মিত হচ্ছে। সুবিধাভোগীদের এসব ঘরসহ জমি কবুলিয়াত করে দেয়া হবে। প্রতিটি পরিবার এতে ঘরসহ গড়ে প্রায় ২ শতাংশ জমি পাবে।