ঝিনাইগাতীতে গণকবর সংরক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন- জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব

22

স্টাফ রিপোর্টারঃঃ ১৯৭১ এ মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী কর্তৃক গণহত্যার জন্য ব্যবহৃত গণকবর সমূহ সংরক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন- শেরপুরের জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব। ১১ জানুয়ারী সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার আহমদনগর গনহত্যায় নিহত শহিদদের স্মৃতি রক্ষার্থে গণকবর সংরক্ষণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। এসময় জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব, আহমদনগর গনহত্যায় নিহত শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তর্বক অর্পন করেন এবং শহীদদের জন্য দোয়া করা হয়। ওই সময় জেলা প্রশাসক এক সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, খুব শীঘ্রই গণকবরের স্মৃতি ধরে রাখতে সকল কার্যক্রম শুরু করা হবে। এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান এসএমএ ওয়ারেজ নাইম, ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রুবেল মাহমুদ, সহকারী কমিশনার (ভূমি) জয়নাল আবেদীন, সহকারী কমিশনার ও বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (ডি.এম) সাদিক আল শাফিন, উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার মোজাম্মেল হক, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান, ঝিনাইগাতী সদর ইউপি চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন চাঁন, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সুরুজ্জামান আকন্দ, ডিপুটি কমান্ডার শামছুল আলমসহ মুক্তিযোদ্ধাগণ উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধন শেষে ঝিনাইগাতী সরকারী মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে “শিক্ষাঙ্গনে সবুজায়ন বাস্তবায়নে” গ্রীন স্কুল কর্মসূচির কার্যক্রমের অংশ হিসেবে একটি পিয়ারা গাছের চারা লাগিয়ে শিক্ষাঙ্গনে সবুজায়ন উদ্বোধন করেন এবং স্কাউট দলের মধ্যে মাস্ক ও গাছের চারা বিতরণ করেন।

ওই সময় ঝিনাইগাতী সরকারী মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হামিদ আকন্দসহ অন্যান্য শিক্ষক ও ওই বিদ্যালয়ের স্কাউট দল জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুবকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। পরে জেলা প্রশাসক আনার কলি মাহবুব স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল পরিদর্শন করেন এবং ঝিনাইগাতী উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা করেন। আলোচনা শেষে মুক্তিযোদ্ধাদের মাধ্যে কম্বল ও মাস্ক বিতরণ করেন। একই দিনে উপজেলার কাংশা ইউনিয়নের বাকাকুড়া কমিউনিটি সেন্টারে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের মাঝে নবজাতকের জন্ম নিবন্ধনে অভিভাবকদের সচেতনতা বৃদ্ধি কার্যক্রম বিষয়ে এক আলোচনায় মিলিত হন এবং ৪৫ জন নবজাতকের অভিভাবকদের হাতে জন্ম নিবন্ধন সনদ, কম্বল, মাস্ক, স্যানিটাইজার বিতরণ করেন তিনি। ওই সময় কাংশা ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম, ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান নবেশ খকশীসহ ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নেতৃবৃন্দরা জেলা প্রশাসককে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।