নকলায় হয়ে গেল ঐতিহ্যবাহী ঘোড়াদৌড়

54

মুজিব শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষ্যে শেরপুরের নকলায় অনুষ্ঠিত হয়েছে ঐতিহ্যবাহী ঘোড়া দৌড়। নকলা উপজেলার টালকী ইউনিয়নের বিবিরচর গ্রামের শেখ রাসেল ক্রীড়া সংঘের উদ্যোগে গত বুধবার এই ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগীতায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা প্রতিযোগীরা অংশগ্রহণ করেন। উদ্যোক্তারা জানান, প্রতিবছর এখানে দেশীয় গ্রামীণ ঐতিহ্যবাহী খেলাধুলার আয়োজন করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় এবারও ঘোড় দৌড় প্রতিযোগীতার আয়োজন করা হয়, ভবিষ্যতেও এর ধারাবাহিকতা রক্ষা করা হবে।

দেশীয় ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে প্রতি বছর শীত মৌসুমে নকলা উপজেলার বিবির চর গ্রামে ঘোড়া দৌড়সহ দেশীয় সংস্কৃতিকে নতুন প্রজন্মের কাছে পৌছে দিতে নানা রকম দেশীয় খেলার আয়োজন করেন ক্লাবটির কর্তাব্যক্তিরা। এরই ধারাবাহিকতায় মুজিব শতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষ্যে উপজেলার এই গ্রামের শেখ রাসেল ক্রীড়া সংঘ আয়োজন করে ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগীতার। দেশের বিভিন্ন জেলার প্রতিযোগীরা ৫৬ টি ঘোড়াসহ প্রতিযোগীরা অংশগ্রহণ করেন। জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শিশু ও নারীসহ কয়েক হাজার মানুষ এই খেলাকে উপভোগ করতে আসেন। প্রতিযোগীতা শেষে বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। ঘোড়া দৌড় প্রতিযোগীতার পাশাপাশি এখানে গ্রামীণ মেলাও বসে। মেলা তো নয় যেন, এ যেন ছোট ছোট শিশু-কিশোরসহ আবাল-বৃদ্ধ-বনিতার এক মিলন মেলা। মেলায় বিভিন্ন রকম খাবারের পসরা নিয়ে বসেন দোকানীরা। গ্রামীণ এসব মেলা প্রতিবছর আয়োজন করা হলে নতুন প্রজন্মের শিশুরা দেশীয় সংস্কৃতির প্রতি আকৃষ্ট হবে এবং তাদের মাঝে দেশাত্ববোধ সৃষ্টি হবে, পাশাপাশি যুবসমাজ খেলাধুলায় মগ্ন থাকলে অপসংস্কৃতি থেকে নিজেকে আড়াল করতে পারবে বলে এমনটাই জানান দর্শনাথীরা।

গ্রামীণ ঐতিহ্যকে নতুন প্রজন্মের কাছে পরিচিত করে তাদের দেশপ্রেমে উজ্জীবিত করতে নকলার যুব সমাজ কাজ করে যাচ্ছে। বছরে দুই-একবার নয় বরং সারাবছর এখানে নানা রকম খেলাধুলার আয়োজন করে শিশু-কিশোর ও যুব সমাজকে আদর্শ নাগরিক হিসেবে গড়ে উঠতে সহায়তা করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন ঘোড়া দৌড়ের আয়োজকরা।

হর্সগার্ল খ্যাত নওগাঁর কিশোরী তাহমিনা খেলায় অংশগ্রহণ করার কথা থাকলেও অসুস্থতার কারণে তিনি প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করতে পারেন নি। এই খেলায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে ৫৬ টি ঘোড়াসহ প্রতিযোগীরা অংশগ্রহণ করেন। খেলায় টাঙ্গাইলের প্রতিযোগী আবুল হোসেন প্রথম স্থান অধিকার করেন।